MigrationTrending News

সার্বিয়া কাজের ভিসা – ওয়ার্ক পারমিট পাওয়ার উপায় (Serbia Work Permit Visa)

সার্বিয়া কাজের ভিসা  আপডেটঃ বর্তমানে সার্বিয়া তে অনেক কর্মীর সংকট দেখা দিয়েছে।  সুতরাং আমরা চাইলে বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে সরাসরি  সার্বিয়াতে যেতে পারবেন। বিশেষ করে সার্বিয়া থে কনস্ট্রাকশন, রেস্টুরেন্ট এবং বিভিন্ন ফ্যাক্টরিতে কাজ করার জন্য ভিসার আবেদন করতে পারবেন।

সার্বিয়া হচ্ছে ইউরোপের অন্যতম একটি নন শেনজেন ভুক্ত উন্নত দেশ।  আপনি    সার্বিয়াতে যাওয়ার পর পরবর্তীতে ইতালিতেও যেতে পারবেন। যাইহোক সার্ভি আসার জন্য কি কি ডকুমেন্ট প্রয়োজন,  কত টাকা লাগবে,  এবং কত সময়  দরকার  ইত্যাদি বিষয়ে এয়ারটেলে আরে আলোচনা করার চেষ্টা করেছি।

সার্বিয়া কাজের ভিসা

সম্প্রতি সার্বিয়ার সরকার প্রচুর কর্মী নিয়োগ দিচ্ছে।  তাই আপনি চাইলে বাংলাদেশ থেকে সরাসরি সার্বিয়া কাজের ভিসা নিয়ে সেখানে কর্মী হিসেবে যেতে পারেন।  বর্তমানে সাধারণত কনস্ট্রাকশন,  ফ্যাক্টরি  এবং রেস্টুরেন্টেঃ  হোটেল বয়,  জেনারেল বিল্ডিং ওয়ার্ক সহ বিভিন্ন পদে নিয়োগ দিচ্ছে।  সুতরাং আপনি যদি সাজাতে গিয়ে এ ধরনের কাজ করে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে চান,  তাহলে আজ এই ভিসার জন্য আবেদন করুন।

যদিও কনস্ট্রাকশন সেক্টরে সার্বিয়া তে সহজেই ভিসার আবেদন করলে অ্যাপ্রভাল পাওয়া যায়,  এছাড়াও আপনার যদি রাঁধুনি কাজে অভিজ্ঞতা থাকে।  তাহলে আপনি রেস্টুরেন্টের সেকশনে কাজ করার জন্য ভিসা নিয়ে যেতে পারেন।  কারণ বর্তমানে কনস্ট্রাকশন সেক্টর ব্যতীত রেস্টুরেন্ট বা রাঁধুনি সেক্টরে অনেক শেফ এর  সংকট হয়েছে।

 রান্নাবান্নাতে যদি আপনার কোনো অভিজ্ঞতা না থাকে,  তাহলে আপনি বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টার থেকে রাধুনী বিষয়ক প্রশিক্ষণ নিয়ে সার্বিয়া  রেস্টুরেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন।

 সার্বিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পাওয়ার উপায়

মূলত কাজের ভিসা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা একি জিনিস।  সুতরাং আপনি সার্বিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা পাওয়ার জন্য রেস্টুরেন্টের শেফ,  হোটেল বয়,  বিল্ডিং নির্মাণ শ্রমিক,  ড্রাইভিং সহ বেশকিছু পদে জব করার জন্য আবেদন করতে পারেন।

বাংলাদেশ থেকে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে সার্বিয়া যাওয়ার উপায়

বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে সার্বিয়া যাওয়া খুবই সহজ।  অর্থাৎ আপনি চাইলে বাংলাদেশ থেকে সার্বিয়া যাওয়ার জন্য প্রথমে ভিসা এপ্লাই করতে পারবেন।

 আপনি যদি সার্বিয়া কাজের ভিসা নিয়ে সেখানে যেতে চান,  তাহলে অবশ্যই বাংলাদেশের সরকারি একটি সংস্থার সাথে কথা বলবেন।  এর পাশাপাশি সার্ভিয়া যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় যে খরচ আদি রয়েছে,  সেসকল টাকা-পয়সার জোগাড় করতে শুরু করবেন।  টাকা-পয়সার যোগান কমপ্লিট হলে,  আপনি সরাসরি বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সার্বিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

কাজের ভিসায় সার্বিয়া যেতে খরচ কত?

মূলত সার্বিয়া তে কাজ করার জন্য আপনাকে সর্বনিম্ন 6 লক্ষ থেকে সর্বোচ্চ 8 লক্ষ টাকা পর্যন্ত হাতে রাখতে হবে।  এবং সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে আপনাকে অবশ্যই বৈধ পাসপোর্ট সংগ্রহ করতে হবে তারপর আপনি সার্বিয়ায কাজের ভিসা ‘র জন্য আবেদন করতে পারবেন।

সার্বিয়া থেকে ইউরোপের অন্যান্য দেশে যাওয়া যাবে কিনা

 বর্তমানে সার্বিয়া তে কনস্ট্রাকশন কাজের চাহিদা বেশি আছে। আপনারা কনস্ট্রাকশন কাজে আসতে পারবেন। যাদের কনস্ট্রাকশন কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে কিংবা যারা কাজ করতে পারবেন এরকম ইন্টার্নেশন নিয়ে সার্বিয়াতে আসবেন। এবং আপনার যদি টার্গেট থাকে আপনি ইউরোপে যাবেন, সেক্ষেত্রে আপনাকে কিছুদিন সার্বিয়া তে কাজ করতে হতে পারে।

যেমন আপনি ছয় মাস কাজ করলেন সার্বিয়াতে আসলেন এবং কনস্ট্রাকশনের কাজ করেন। তবে আপনার কাজ শিখে আসতে হবে কিংবা জানা থাকতে হবে। কাজের অভিজ্ঞতা ছাড়া আপনি এসে বিপদে পড়ে যাবেন এটা একটা পয়েন্ট। এরপরে হচ্ছে যে আপনারা ফ্যাক্টরি কাজগুলোতে আসতে পারেন।

সার্বিয়া তে কাজের বেতন কত?

ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় সার্বিয়া তে আপনি উচ্চ বেতনে চাকরি করতে পারবেন।  যদিও কত বেতন বা প্রতি মাসে কত টাকা স্যালারি দেওয়া হবে সেটা নির্দিষ্ট করে বলা সম্ভব না,  কারণ আপনার মাসিক বেতন কত টাকা হবে এটা আপনার অভিজ্ঞতা ও কাজের উপর নির্ভর করছে।  তবে সাধারনত বিল্ডিং নির্মাণ শ্রমিক ও হোটেল রেস্টুরেন্ট এর কাজের বেতন 40 থেকে 50 হাজার টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।  আর ড্রাইভিং কাজের জন্য প্রতি মাসে 60 থেকে 80 হাজার বাংলাদেশী টাকা হয়ে থাকে। 

সার্বিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে কি কি কাজ করতে পারবো?

সার্বিয়া তে বর্তমানে কনস্ট্রাকশন,  ফ্যাক্টরি এবং রেস্টুরেন্টের বিভিন্ন পদে জব করার জন্য আপনি ভিসার আবেদন করতে পারেন।  ফ্যাক্টরি গুলোর মধ্যে বিশেষ করে কিছু প্লাস্টিক ফ্যাক্টরি,  চকলেট ফ্যাক্টরি সহ কিছু  শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে:  যেখানে প্রথম পর্যায়ে কাজের জন্য কম স্যালারী পাবেন।

 কিন্তু আপনার মাথায় রাখতে হবে যে আপনাদের স্যালারী কম হবে কিন্তু আপনি কাজ করতে পারবেন। এবং পরবর্তীতে আপনার সিস্টেম অনুযায়ী ইতালি শহর ইউরোপের অন্যান্য কান্ট্রিতে যেতে পারবেন।

সার্বিয়া কাজের ভিসা প্রসেস ইন করার নিয়ম

Serbia Work Permit Visa সার্বিয়া কাজের ভিসা ওয়ার্ক পারমিট পাওয়ার উপায়
Serbia Work Permit Visa সার্বিয়া কাজের ভিসা ওয়ার্ক পারমিট পাওয়ার উপায়

  এখন কথা হচ্ছে যে সার্বিয়া থে ভিসা প্রসেসিং করার জন্য আপনাদেরকে কি লাগবে? বা 2023 সালের নতুন কি কি আপডেট এসেছে?

উত্তরঃ সার্বিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা প্রসেসিংয়ের জন্য নতুন আপডেট তেমন কিছুনা, অর্থাৎ আগের প্রসেসই চলছে। যেমন আপনাদের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট লাগবে এবং ছবি লাগবে 15 মিলিমিটার সাইজের। এবং পাসপোর্ট এর ভ্যালিডিটি এক বছর এর উপরে হতে হবে।

 যেহেতু আপনি ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যেতে চাচ্ছেন। তো আপনার পাসপোর্ট এর মেয়াদ এক বছরের উপরে হতে হবে। এসব কয়েকটি ডকুমেন্ট হলেই কিন্তু আপনারা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে বাংলাদেশ থেকে সার্বিয়া আসতে পারবেন।

বাংলাদেশ সার্বিয়া এম্বাসি আছে কিনা

সে ক্ষেত্রে আপনার প্রশ্ন থাকতে পারে যে, বাংলাদেশের সার্বিয়া এম্বাসি আছে কিনা। বর্তমানে বাংলাদেশে সার্বিয়া এম্বাসি নাই। অনেক সময়, বিভিন্ন ক্ষেত্রে সার্বিয়া ভিসার জন্য আপনাদের এম্বাসি ফেস করতে হতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনাকে ইন্ডিয়া সার্বিয়া এম্বাসীতে যেতে হবে, ( যদি এম্বাসি ফেস করতে হয়)। আপনি যদি কোন এজেন্সির দ্বারস্থ হন, বা কোনো দালালের সাহায্যে কাজ করেন। সেক্ষেত্রে তারা এই কাজগুলো করে থাকবে, আপনাকে এরকম কোন টেনশন নিতে হবেনা কিংবা প্যারা নিতে হবে না।

সার্বিয়া থেকে ইউরোপের অন্যান্য দেশে যাওয়ার নিয়ম

অনেকের প্রশ্ন থাকতে পারে যে আমি সার্বিয়া গিয়ে পরবর্তীতে ইউরোপে  যেতে পারবো কিনা? আমি বলব হ্যাঁ অবশ্যই যেতে পারবেন তাদের নির্দিষ্ট একটি সময়ে পর্যন্ত আপনাকে সার্বিয়া তে কাজ করতে হবে।  কিন্তু ঠিক কত সময় ধরে কাজ করতে হবে সেটা আপনার কোম্পানির সঙ্গে কথা বলে নিবেন যে তাদের সঙ্গে কি চুক্তি হয়েছে এবং তাদের কাজ করার জন্য সময় সাপেক্ষে কোন শর্তাদি রয়েছে কিনা।

 সার্বিয়া থেকে ইউরোপের অন্যান্য দেশে দুইভাবে যেতে পারবেনঃ ১)  বৈধভাবে। ২)  অবৈধভাবে। তবে আমি বলবো বৈধভাবে সার্বিয়া থেকে আপনি ইউরোপের অন্যান্য কান্ট্রিতে রুলস অনুযায়ী যান,  এটা আপনার জন্য নিরাপদ।

যখন আপনি সার্বিয়া তে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কাজ করবেন এবং সেই সময়টুকু থেকে উত্তীর্ণ হবেন,  তখন আপনি চাইলে কারো মাধ্যমে অথবা নিজে নিজেই ভিসা প্রসেসিং  এর কাজ শুরু করতে পারেন।  এক্ষেত্রে আপনি পোল্যান্ড বা পর্তুগাল ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারবেন।  তারপর সেখান থেকে সিজনাল ভিসার মাধ্যমে ইউরোপের অন্য কান্ট্রিতে ধারাবাহিকভাবে যেতে পারবেন। 

সার্বিয়ায় এক কোম্পানির ভিসা নিয়ে অন্য কোম্পানিতে কাজ করা যাবে কিনা? 

অনেকের প্রশ্ন থাকে যে, সার্বিয়াতে আসার পরে কোম্পানি পরিবর্তন করতে পারবন কিনা। কারন অনেকেই কিন্তু বিভিন্ন কোম্পানিতে আসবেন কিন্তু আপনারা সেই পছন্দের কাজটি যদি না পান, সে ক্ষেত্রে কোম্পানি পরিবর্তন করা যায় কিনা? উত্তরঃ হ্যাঁ সার্বিয়াতে আসার পরে কোম্পানি পরিবর্তন করতে পারবেন এবং ভালো বেতনে কাজ করতে পারবেন। তবে আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে।

সার্বিয়া কাজের ভিসা নিয়ে প্রয়োজনীয় টিপস

আপনাদের মধ্যে যারা সার্বিয়া কাজের ভিসা নিয়ে জব করতে যাবেন,  তারা চেষ্টা করবেন কোন লিগেল উপায় স্যার বিয়েতে যাওয়ার জন্য।  অযথা দালালের খপ্পরে পড়ে অবৈধভাবে সেখানে গিয়ে নিজের টাকা পয়সা ও আপনার জীবনের মূল্যবান সময় গুলো কে নষ্ট করবেন না।

 যদি আপনি সার্বিয়াতে না যেতে পারেন,  তাহলে আপনি চাইলে ইউরোপের অন্যান্য কান্ট্রি রয়েছে যেমন বুলগেরিয়া,  পোল্যান্ড,  পর্তুগাল সহ বিভিন্ন দেশে যেতে পারেন। এছাড়া আপনি চাইলে ক্রোয়েশিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে ভালো বেতনে চাকরি করার জন্য যেতে পারেন। সার্বিয়া কাজের ভিসা নিয়ে যদি আপনার কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে অনুগ্রহ করে কমেন্ট বক্সে লিখুন, আমি যথাসম্ভব উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker