Migration

বাংলাদেশের জন্য কোন কোন দেশের ভিসা খোলা আছে (which country’s visa is open for Bangladesh)

এই আর্টিকেলটিতে আমি মূলত আলোচনা করব ইউরোপের কোন কোন দেশের ভিসা সহজে পাওয়া যায় এবং বাংলাদেশের জন্য কোন কোন দেশের ভিসা খোলা আছে এবং তাদের ভিসা রেশিও কত পরিমাণে এবং আপনি সহজে কোন দেশে ওয়ার্ক পারমিট ভিসা নিয়ে যেতে পারবেন। এ আর্টিকেলটি মূলত তাদের কথা চিন্তা করেই পাবলিশ করেছি যারা সেঞ্জেন ভুক্ত দেশের অধীনে ছাড়া অন্য কোন দেশে প্রবাসী হিসেবে যেতে চাচ্ছেন না বিদেশে কর্মসংস্থানের উদ্দেশ্যে শুধুমাত্র সেনজেন এর আওতাভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে যেতে চাচ্ছেন তাদের জন্য।

সাম্প্রতিককালের রুমানিয়া ক্রোয়েশিয়া সহ বিভিন্ন দেশ রয়েছে যেখানে আমাদের বাংলাদেশের বাঙালিরা প্রবাসী জীবন যাপনের জন্য যেতে চাচ্ছে এবং কর্মসংস্থানের জন্য ওয়ার্ক পারমিট ভিসার আবেদন করতে চাচ্ছে কিংবা পড়াশোনার জন্য স্টুডেন্ট ভিসায় কানাডা অস্ট্রেলিয়া বিভিন্ন দেশে যাচ্ছে।

তো যাই হোক আমি আপনাদেরকে আজকে এমন পাঁচটি দেশের নাম বলবো যে দেশগুলো সেনজেন এর আওতাভুক্ত এবং খুব সহজেই আপনি বাংলাদেশ থেকে সেখানে ভিসা পাবেন।

বাংলাদেশের জন্য কোন কোন দেশের ভিসা খোলা আছে?

 আজকের এই আর্টিকেলে আমি মোটামুটি পাঁচটি দেশের লিস্ট দিয়ে শুরু করবো যেখানে ভিসা আবেদন করলে ভিসার টিকে যাওয়ার যে রেশিও সেটা ৯০% পার্সেন্ট এর উপরে আপ করবে অর্থাৎ ভিসার আবেদন করার পরে 90% এর উপরের বিষয়গুলো কিন্তু একসেপ্ট হয়ে যায় বা গ্রহণ করা হয়ে যায়। এবং আপনি চাইলে খুব সহজেই 5 টি দেশের মধ্যে যেকোনো একটি দেশে যেতে পারেন তো চলেন আমরা জেনে নেই বাংলাদেশের জন্য কোন কোন দেশের ভিসা খোলা আছে।

এক নম্বরে হাঙ্গেরি

আপনি হয়তো বা অবগত আছেন 2018 19 সালে হাঙ্গেরি দেশে বাংলাদেশ থেকে অনেক অনেক কর্মী নিয়োগ দেয়া হয়েছে এবং এখনও পর্যন্ত অনেকেই হাঙ্গেরিতে কর্মসংস্থানের জন্য যাচ্ছে এবং সম্প্রতিককালে একটি কনসালটেন্সি থেকে আমাদের দেশে প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছে।

হাঙ্গেরি ভিসা পাওয়ার সহজ উপায়

সুতরাং হাঙ্গেরি দেশের সেই কনসালটেন্সি টিম কিন্তু আমাদের দেশে প্রচুর পরিমাণে লোক নেওয়ার জন্য ভিসা প্রসেসিং শুরু করে দিয়েছে এবং আপনারা আপনি হয়তো বা জানেন না যে ইতিপূর্বে অনেকেই আবেদন করা শুরু করে দিয়েছে সো আপনি যদি আগে যেতে চান তাহলে কিন্তু আপনাকে হাঙ্গেরি কনসালটেন্সির জন্য যে তাদের টিম রয়েছে ঢাকা তে অবস্থিত সেই ঢাকার অফিসে গিয়ে আপনাকে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে এবং এটা অতিসত্বর করবেন আশা করি ।

বাংলাদেশে তাদের কনসালটেন্সি প্রতিষ্ঠান নাম হচ্ছে: Honorary Consulate of Hungary, Bangladesh.

Address:

  1. Address: SW (G)-8, Bir Uttam Mir Shawkat Sarak Road, Gulshan 1, Dhaka 1212
  2. Phone: 02-9884312
  3. Email:  ১) nawadir.ali@ecg.com.bd ২) ecg@bangla.net ৩) ajc@ecg.com.bd

শুধুমাত্র শনিবার তাদের অফিস বন্ধ থাকে এবং প্রতিদিন অর্থাৎ রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহস্পতি এবং শুক্রবার প্রতিদিন সকাল 9 টা থেকে সন্ধ্যা 6 টা পর্যন্ত তাদের অফিস খোলা থাকে।  এছাড়া সরকারি ছুটির দিনগুলোতে কিন্তু তাদের অফিস বন্ধ থাকে সুতরাং আপনি কিন্তু আপনার নিজের সুবিধা এবং তাদের অফিসের সময় অনুযায়ী তাদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করবেন অথবা তাদের অফিসে সরাসরি যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে আরো ভালো হবে। 

আপনি হয়তো জানেন না যে হাঙ্গেরিতে ভিসার রেশিও কিন্তু 92 শতাংশ। অর্থাৎ আপনি যখন ভিসার জন্য আবেদন করবেন বিষয়টি 99% সম্ভাবনা রয়েছে যে একসেপ্ট হয়ে যাবে এবং আপনি কিন্তু হাঙ্গেরিতে গেলে আপনার কর্ম জীবনের স্বপ্নটা পূরণ করতে পারবেন আশা করি।

এখন আপনার প্রশ্ন আসতে পারে যে আমি কিভাবে বুঝলাম যে হাঙ্গেরিতে ভিসার রেশিও 92 শতাংশ?

উত্তরঃ হাঙ্গেরি কনসালটেন্সি টিম অথবা হাঙ্গেরি এম্বাসিতে কিন্তু তাদের এই ভিসা রেশিও সিস্টেম টা দেওয়া আছে 2018 সাল থেকে নিয়ে 2022 সাল পর্যন্ত কি পরিমাণ ভিসা তারা একসেপ্ট করেছে এবং বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগ দিয়েছে।  সুতরাং আপনি তাদের এম্বাসি ওয়েবসাইটে গেলে অথবা তাদের সঙ্গে সরাসরি কথা বললেই বুঝতে পারবে যে তাদের বিচারের কতটা পরিমাণ কার্যকরী এবং কতটুকু সম্ভাবনাময়ী।

দুই নম্বরেঃ স্লোভাকিয়া বা স্লোভেনিয়া ভিসা পাওয়ার সহজ উপায়

সেনজেন আওতাভুক্ত অন্যতম একটি দেশের নাম হল স্লোভাকিয়া বা অনেকে এটাকে স্লোভেনিয়া বলেন তো এই দেশটিতে যারা যেতে চাও যেতে পারবেন।  অনেকে হয়তো বা স্লোভাকিয়ার নামটা জানেন না তাদেরকে বলছি যে আপনি গুগলে সার্চ করে স্লোভাকিয়ার দেশ এবং এদের লোকেশন এর সুযোগ সুবিধা এবং বিদেশে যাওয়ার সুবিধা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিবেন।

স্লোভাকিয়া বাসু লোভনীয় কিন্তু সেনজেন দেশের আওতাভুক্ত।  অর্থাৎ সেনজেন দেশ গুলোর মধ্যে যেকোনো একটি দেশে যখন আপনি যাবেন এবং যে সকল সুযোগ-সুবিধা আপনি পাবেন স্লোভাকিয়া বা স্লোভেনিয়া তো গেল কিন্তু আপনি হুবহু সেই সুযোগ সুবিধাগুলো পাবেন।

 কিন্তু সাম্প্রতিককালে আমাদের দেশেও কিন্তু স্লোভেনিয়া তেমন একটি হৈ-হুল্লোড় নাই যার কারণে আমাদের দেশ থেকে সরাসরি এম্বাসিডর এর মাধ্যমে মাধ্যমে ভিসার জন্য আবেদন করার কোনো সিস্টেম নেই। তবে আপনি চাইলে ইন্ডিয়ান এজেন্সি বা যেকোন তৃতীয় মাধ্যমের এজেন্সিতে কিন্তু যোগাযোগ করতে পারেন এবং তাদের মাধ্যমে কিন্তু আপনি শুকিয়ে যেতে পারেন তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই সাবধানতা অবলম্বন করবেন।  কারণ বর্তমানে আগের তুলনায় কিন্তু দালালদের খবর এবং দালালি কার্যক্রম অনেক বেশি স্বাধীনতা শহীদ করা হয় যাতে করে আপনি বুঝতে পারবেন না যে আপনি আসলেই ভুল পথে যাচ্ছেন নাকি সঠিক পথে যাচ্ছেন সুতরাং সাবধানতা নিজের জন্য এবং আপনার সাফল্যের দিকে সতর্কতার সহিত এগোতে হবে।

স্লোভেকিয়াতে ভিসা পাওয়ার চান্স কত পার্সেন্ট?

উপরে আমি উল্লেখ করেছি হাঙ্গেরিতে ভিসা পাওয়ার চান্স নাই 2 পার্সেন্ট কিন্তু স্লোভাকিয়া বা স্লোভেনিয়া ভিসা পাওয়ার 46 শতাংশ অর্থাৎ আপনি যেকোন ভিসা আবেদন করেন না কেন সেটা হতে পারে টুরিস্ট ভ্রমণ ভিসা অথবা স্টুডেন্ট ভিসা অথবা ওয়ার্ক পারমিট ভিসা যেকোনো ভিসা আবেদন করেন না কেন 9% সম্ভাবনা থাকে যে আপনি আপনার ভিসা টি পেয়ে যাবেন।

সুতরাং আপনি চাইলে কিন্তু স্লোভেনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যেতে পারেন।

তিন নম্বরে লাটভিয়া ভিসা পাওয়ার সহজ মাধ্যম

আপনি জানলে অবাক হয়ে যাবেন যে লাটভিয়ার ভিসার রেশিও 98 শতাংশ অর্থাৎ আপনি ভিসার জন্য আবেদন করার পর 98 পার্সেন্ট সম্ভাবনা থাকে যে আপনার বিষয়টি একসেপ্ট হয়ে যাবে এবং আপনি লাটভিয়া দেশে ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যেতে পারবেন। 

চার নম্বরে এস্তোনিয়া ভিসা

রাশিয়ার পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম শান্তিপ্রিয় এবং সুন্দরতম দেশ গুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে এস্তোনিয়া দেশ।  এস্তোনিয়া দেশ কিন্তু সেনজেন ভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি। 

which countrys visa is open for Bangladesh বাংলাদেশের জন্য কোন কোন দেশের ভিসা খোলা আছে
Which countrys visa is open for Bangladesh বাংলাদেশের জন্য কোন কোন দেশের ভিসা খোলা আছে

আপনি হয়তো জানেন না 2018 19 সালের দিকে বাংলাদেশ থেকে এস্তোনিয়া ভিসা নিয়ে কাজ করার জন্য অনেক ব্যক্তি গিয়েছেন।  এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসার রেশিও কিন্তু অনেক ভালো। আমাদের দেশ থেকে সাধারণত এস্তোনিয়াতে সচরাচর কেউ চায় না কিন্তু আপনি যদি চান তাহলে কিন্তু আজ আজি আবেদন করতে পারেন এবং যত দ্রুত সম্ভব আপনি ভিসা প্রসেসিং টা চালু করতে পারেন।

এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা আবেদন

দুনিয়াতে কিন্তু ভিসার রেশিও অনেক বেশি অর্থাৎ আপনি চাইলে ভিসার আবেদন করার দুই মাসের মধ্যে ভিসা প্রসেসিং কমপ্লিট হয়ে যাওয়ার মাধ্যমে এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিটার হিসেবে যেতে পারবেন।

 সুতরাং এস্তোনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসার আবেদনের জন্য আপনাকে অনলাইন থেকে সার্চ করে তাদের এম্বাসি অথবা কনসালটেন্সি টিমের সাথে যোগাযোগ করতে হবে এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইটের জব সার্চ করা হয় বা পোস্ট করা হয় সেখান থেকে কিন্তু আপনি তাদের চাকুরীর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি উপর নির্ভর করে এপ্লাই করতে পারেন আপনার যে ডকুমেন্টারি আছে সেগুলো জমা দিতে পারেন এভাবে যদি আপনি করতে থাকেন তাহলে আশাকরি একটা না একটা জব আপনার জন্য জুটে যাবে এবং আপনি চাইলে কিন্তু ওয়ার্ক পারমিট ভিসা দুনিয়াতে খুব সহজে যেতে পারবেন।

Read More: ইউরোপের কোন দেশের ভিসা সহজে পাওয়া যায়

পাঁচ নম্বরে লিথুনিয়া ভিসা

উপরে আমি সেঞ্জেন ভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে যে কয়টি দেশের কথা উল্লেখ করেছি তার মধ্যে লিথুনিয়ার ভিসা খুব সহজেই পাওয়া যায় এবং এদের ভিসা পাওয়ার চান্স খুবই ভালো ।

লিথুনিয়ায় ভিসা পাওয়ার সম্ভাবনা কত?

এখন হয়তো আপনি আমাকে প্রশ্ন করবেন যে ভাই লিথুনিয়া ভিসা পাওয়ার সম্ভাবনা কত আমি এক বাক্যে উত্তর দিব লিথুনিয়ায় ভিসা পাওয়ার সম্ভাবনা হচ্ছে 99 শতাংশ।  আপনি ভিসার জন্য আবেদন করার কিছুদিনের মধ্যেই ভিসা পাওয়ার সম্ভাবনা থেকে যাবে যদি কোন কারণে আপনার ডকুমেন্টারিতে ভুল থাকে বা অন্য কোনো বিশেষ কোনো কারণ থাকে তাহলেই আপনার ভিজিট করা হয় নতুবা কিন্তু সকলের ভিসায় আপনার গ্রহণ করা হয় একসেপ্ট করা হয় তো আপনি চাইলে কিন্তু লিথুনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসা আবেদন করতে পারেন।

আপনার যদি অভিজ্ঞতা থাকে কনস্ট্রাকশন সেক্টরে তাহলে কিন্তু আপনি লিথুনিয়া ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন।

 কারণ হচ্ছে গিয়ে লিথুনিয়া তে অন্যান্য ছাড়াও কনস্ট্রাকশন সেক্টরের ভিসাতে এত পরিমান লোক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে যে আপনি অবাক হয়ে যাবেন এ জন্য কিন্তু গুগলে গিয়ে আপনি বিভিন্ন জব ভেকেন্সি ওয়েবসাইটগুলোতে ভিজিট করতে পারেন এবং দেখতে পারেন যে দুনিয়াতে কনস্ট্রাকশনের জবের চাহিদা কি পরিমাণে রয়েছে।

এছাড়াও আপনি যেকোন সেক্টরের যে কোন ক্যাটাগরির লিথুনিয়া ওয়ার্ক পারমিট ভিসার জন্য আবেদন করতে পারেন এবং 99 শতাংশ সম্ভাবনার মাধ্যমে লিথুনিয়া তে কর্মসংস্থানের জীবন শুরু করার উদ্যোগ নিয়ে আপনার ক্যারিয়ারের সফলতার দিকে এগুতে পারেন।

তাছাড়াও আমাদের দেশ থেকে বিভিন্ন দেশের মতো সেনজেন ভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে আমি যে পাঁচটি দেশের কথা উল্লেখ করলাম সে দেশগুলোতে কিন্তু আপনি রেস্টুরেন্টের জব হসপিটালের জব তারপর হচ্ছে বিভিন্ন রকমের গ্যারেজ বাগান এবং হল চাষ আবাদ অর্থাৎ কৃষিকাজের জন্য কিন্তু আবেদন করতে পারেন। 

পরিশেষে,

এ আর্টিকেলটিতে মূলত আমি আপনাকে জানানোর চেষ্টা করেছি সব চেয়ে কম সময়ে ইউরোপের কোন কোন দেশের ভিসা হয়? এবং কোন কোন দেশের ভিসার হার 99% পর্যন্ত? এবং সেনজেন ভুক্ত কিনা। 

যাহোক আমি আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন যে সেনজেন ভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে কোন দেশগুলোতে যাওয়া আপনার জন্য বেটার হবে এছাড়া চাইলে আপনি অন্যান্য দেশগুলো তো যেতে পারেন বাট আমি যে পাঁচটি দেশের কথা উল্লেখ করলাম এই দেশগুলোর যেকোন একটিতে আপনি যেতে পারেন তবে দুনিয়াতে আমি সার্চ করব আপনাকে আপনি যান আপনি এতক্ষণে জানলেন বাংলাদেশের জন্য কোন কোন দেশের ভিসা খোলা আছে  এবং ঐ সমস্ত দেশের ভিসা রেশিও কত।  তারপরও যদি আপনার কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে অনুগ্রহ করে কমেন্টে লিখে রাখুন আমি যথাসম্ভব আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।  ধন্যবাদ।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker